মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ০৩:০৪ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
Logo দুর্গা–দর্শনে বেরিয়ে মাকে আজীবনের জন্য হারাল সুজন Logo বিয়ের সাজে কনে গেলেন হাসপাতালে, নিহত ২ Logo শেখ হাসিনা: হিন্দুদের নিরাপত্তাহীনতার মাঝে ভারতকে সতর্ক থাকার আহ্বান জানিয়েছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী Logo সৌদি আরবে মেয়েদের যেসব কাজের জন্য পুরুষদের অনুমতির প্রয়োজন হয় Logo সাম্প্রদায়িক সহিংসতা: বিভিন্ন জায়গায় হিন্দুদের ওপর হামলা নিয়ে প্রশাসনের বিরুদ্ধে অভিযোগ, কী বলছে সরকার? Logo পূজামণ্ডপ: নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে পূজামণ্ডপে হামলা-অগ্নিসংযোগ ও মন্দিরে ভাঙচুর Logo ভারত: বাংলাদেশের হিন্দুদের রক্ষার জন্য নরেন্দ্র মোদীকে পদক্ষেপ নেবার আহ্বান জানালেন পশ্চিমবঙ্গের বিজেপি নেতা Logo ঢাকা ও নোয়াখালীতে জুমার নামাজের পর সংঘর্ষ, ১ জনের মৃত্যু Logo তসলিমা নাসরীন: ইসলাম বিদ্বেষী পোস্ট দেয়ার অভিযোগে তিনজনের বিরুদ্ধে চার্জশিট দাখিল Logo কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আ.লীগ সভাপতির বাড়িতে হামলা-ভাঙচুর Logo ই-কমার্সে প্রতারণা Logo ৮৪% শিক্ষার্থী মানসিক সমস্যায় Logo ১০ বছরের খাদিজাকে আর বাঁচানো গেলা না। একটু ভুলেই অপূরণীয় ক্ষতি Logo আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে বিএনপি নেতার মার্কেট ভাঙলেন কাদের মির্জা Logo কিউকমের প্রতারণায় গ্রেপ্তার আরজে নীরব Logo উপনির্বাচনে জয়ী হওয়ায় মমতাকে অভিনন্দন পররাষ্ট্রমন্ত্রীর Logo ভেঙেই গেল চৈতন্য-সামান্থার সংসার Logo আজীবন সম্মাননা পাচ্ছেন রুনা লায়লা Logo পরীমণিকে বাসা ছাড়ার নোটিশ Logo লিবিয়ায় বাংলাদেশিসহ ৫০০ অভিবাসনপ্রত্যাশী আটক Logo মহানবী (সা.) এর ব্যঙ্গচিত্র আঁকা সুইডিশ কার্টুনিস্ট সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত Logo মিরপুরে তিন কলেজছাত্রী নিখোঁজ Logo ১০০ বাড়ির মালিক তালহা বখত আমেরিকায় এবং জার্মানিতে ১০০ বাড়ির মালিক এক বাংলাদেশি প্রবাসীর কথা Logo দাখিল পরীক্ষার রুটিন প্রকাশ, পরীক্ষা শুরু ১৪ নভেম্বর Logo দাফনের সাড়ে ৪ মাস পেরুলেও কবর থেকে অক্ষত অবস্থায় নারীর মরদেহ উদ্ধার Logo শ্রীপুর কলেজ ক্যাম্পাসে অস্ত্রের মহড়া Logo মানি লন্ডারিং প্রমাণ না হলে সাজা ৭ বছর Logo সাংবাদিকদের মনে ভয়ভীতি সৃষ্টি করতেই নেতাদের ব্যাংক হিসাব তলব Logo টাকা ফেরতে ইভ্যালি, ই–অরেঞ্জের গ্রাহকেরা যা করতে পারেন, তবে… Logo সর্বোচ্চ সতর্কতা ই-কমার্সে

যে স্টাম্পের ওপর সাকিবের পা উঠল, সেটি এক দিনে হয়নি

জনপ্রিয় খবর প্রতিনিধি : / ৫৬ বার পঠিত
সময়: শনিবার, ১২ জুন, ২০২১, ১১:২৬ পূর্বাহ্ণ

সংবাদটি শেয়ার করুন:
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আম্পায়ারের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে অশোভন প্রতিবাদ জানান সাকিব।

আম্পায়ারের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে অশোভন প্রতিবাদ জানান সাকিব।

কিন্তু এই যে ক্রিকেটীয় চেতনা, সেটি আসলে কী? অল্প কথায় তা বোঝানো কঠিন। তারপরও চেষ্টা করা যাক। ধরুন, বোলার বল ছাড়ার আগেই ক্রিজ থেকে বেরিয়ে যাওয়া নন–স্ট্রাইকিং প্রান্তের ব্যাটসম্যানকে ‘মানকাডিং’ আউট করাটা যেমন এই খেলার চেতনার সঙ্গে যায় না, তেমনি মাঠে যেকোনো ধরনের অসদাচরণ, আম্পায়ারের সিদ্ধান্ত ভুল হলেও তার প্রতিবাদ করা—সবই ক্রিকেটের চেতনাবিরোধী।

মোটকথা, ক্রিকেট খেলার সৌন্দর্যহানি ঘটায়, এমন যেকোনো কিছুই ক্রিকেটীয় চেতনার সঙ্গে সাংঘর্ষিক।

কিন্তু ঢাকার ক্লাব ক্রিকেটের যে বাস্তবতা, সেখানে ক্রিকেটীয় চেতনার কবর আরও অনেক আগেই রচিত হয়ে গেছে। নিচের দিকের লিগে এমনও দেখেছি, পক্ষপাতমূলক সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ জানিয়ে খেলোয়াড় আম্পায়ারকে মুখের ওপর ‘চোর’ বলছেন। আম্পায়ার সেটি অম্লানবদনে মেনে নিচ্ছেন। ওই ক্রিকেটারের বিরুদ্ধে আম্পায়ার পরেও কোনো রিপোর্ট করেননি। ক্রিকেটারের শাস্তিও হয়নি। কারণ, আম্পায়ার জানতেন, তিনি আসলেই কোনো বিশেষ ক্লাবকে সুবিধা দিতে গিয়ে ‘চুরি’ করেছেন।

সাকিব মেজাজ হারানোয় শাস্তি পেতে পারেন।

সাকিব মেজাজ হারানোয় শাস্তি পেতে পারেন।

বাংলাদেশের ঘরোয়া ক্রিকেটে এ রকম আরও অনেক ঘটনাই আছে, ক্রিকেট–উন্নত বিশ্বের দেশগুলো যেসব দেখলে বা জানলে ক্রিকেটের চেতনা সম্পর্কে তাদের ধারণায়ও প্রকাণ্ড ধাক্কা লাগবে।

ভুল আউটের প্রতিবাদ জানিয়ে ব্যাটসম্যান উইকেটের ওপর বসে আছেন। খেলা বন্ধ।আম্পায়ার খেলোয়াড়কে অনুনয় করে বলছেন, ‘আমার কিছু করার নেই। আজ তোমাদের হারাতেই হবে। নইলে আমি আর ম্যাচ পাব না।’ বছর দুয়েক আগে ফতুল্লা স্টেডিয়ামে এমন দৃশ্যেরও অবতারণা হয়েছে।

অসহায় ম্যাচ রেফারি সাংবাদিকের হাত ধরে কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলেছেন, ‘এই কাজ ছাড়া আর কোনো রোজগার নেই। ওদের পক্ষে সিদ্ধান্ত না দিলে ম্যাচ পাব না। খাব কী? প্লিজ আপনি কিছু লেইখেন না।’

মাঠে যাঁরা ক্রিকেটের আইন ফলাবেন, ক্রিকেটের চেতনা যাঁদের ছায়ায় টিকে থাকবে, তাঁরা আম্পায়ার–ম্যাচ রেফারি। দুর্ভাগ্যজনক হলেও সত্যি, মাঠে ক্ষমতাসীন ক্লাবগুলোর নগ্ন প্রতিনিধিত্ব করে বাংলাদেশের ঘরোয়া ক্রিকেটের আম্পায়ার, ম্যাচ রেফারিরা অনেক আগেই সেই মর্যাদার আসন হারিয়েছেন। খেলোয়াড়দের আড্ডায় এসব ম্যাচ কর্মকর্তাকে এমন এমন মুখরোচক নামে ডাকা হয়, যেগুলো শুনলে লজ্জায় তাঁরা আর মাঠমুখী হতেন কি না সন্দেহ।

কাল আবাহনী–মোহামেডান ম্যাচে দুবার আম্পায়ারের সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ জানান সাকিব।

কাল আবাহনী–মোহামেডান ম্যাচে দুবার আম্পায়ারের সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ জানান সাকিব।

আবার উল্টোটাও হতে পারে। তাঁরা হয়তো ঠিকই জানেন, খেলোয়াড়েরা তাঁদের কোন চোখে দেখেন। কিন্তু পক্ষপাতিত্বে প্রাপ্তিযোগ যেহেতু ভালো, চক্ষুলজ্জা ভুলে যত পারা যায় মাঠে গিয়ে আম্পায়ারিং করার নীতিতেই তারা বিশ্বাসী। সাকিবের ঘটনার পর কাল বিসিবির এক ম্যাচ রেফারি দুঃখ করে বলছিলেন, ‘আমরা তো ভাই চোখে পর্দা লাগিয়ে ফেলেছি।’

একের পর এক বাজে আম্পায়ারিংয়ের ঘটনা এবং ভুক্তভোগী ক্লাবগুলোর লিখিত অভিযোগের পরও বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) আজ পর্যন্ত কোনো আম্পায়ারের বিরুদ্ধে তদন্ত করেছে বা কাউকে শাস্তি দিয়েছে বলে শোনা যায়নি। বাজে আম্পায়ারিং নিয়ে কখনো খুব শোরগোল পড়ে গেলে বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান আশ্বাস দেন সব ঠিক হয়ে যাওয়ার। কিন্তু ঠিক আর হয় না।

বরং মাঠে বিশেষ বিশেষ ক্লাবকে অন্যায় সুবিধা দিয়ে সেই আম্পায়ার-ম্যাচ রেফারিরা সময়ের সঙ্গে আরো বেশি সুবিধাভোগীই হয়েছেন। আর তাঁদের পক্ষপাতমূলক সিদ্ধান্তে অন্যায়ভাবে ম্যাচ জিতে প্রভাবশালী ক্লাবগুলো পয়েন্ট তালিকায় থাকছে ওপরের দিকে। নিশ্চিত করছে বিসিবির নির্বাচনে নিজেদের শক্ত অবস্থান।

সাকিবকে থামাতে চেষ্টা করছেন আম্পায়ার।

সাকিবকে থামাতে চেষ্টা করছেন আম্পায়ার।

কাল যে স্টাম্পের ওপর সাকিবের পা উঠল, সেটি তাই এক দিনে হয়নি। এটা ঠিক, একটা অন্যায়ের প্রতিবাদ কখনো আরেকটা অন্যায় দিয়ে হয় না। স্টাম্পে লাথি মেরে, স্টাম্প উপড়ে ফেলে সাকিব বড় ভুলই করেছেন। বাংলাদেশের ক্রিকেটে চরম বাজে এক উদাহরণ হয়ে থাকবে এই ঘটনা।

এবার যখন সাকিব মোহামেডানের সঙ্গে চুক্তি সই করেন, তখন নাকি মোহামেডান কর্মকর্তাদের কথা প্রসঙ্গে বলেছিলেন, তিনি যে দলে থাকবেন, সেই দলের সঙ্গে আম্পায়াররা অন্যায় করার সাহস পাবেন না। হতে পারে সাকিব কথাটা জাতীয় ও আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে তাঁর অবস্থান চিন্তা করেই বলেছিলেন।

কিন্তু কাল মুশফিকুর রহিমের বিরুদ্ধে করা এলবিডব্লুর আবেদন আম্পায়ারের কানে প্রতিহত হয়ে আসার পর ওয়ানডের বিশ্বসেরা অলরাউন্ডারও নিশ্চিত বুঝে গেছেন বাংলাদেশের ঘরোয়া ক্রিকেটের বাস্তবতা। আম্পায়ার স্বেচ্ছাবধির হলে এখানে সাকিব আল হাসানের আপিল আর কলাগাছের আপিল আসলে একই।

মেজাজ হারানোর পর ক্ষমাও চেয়েছেন সাকিব।

মেজাজ হারানোর পর ক্ষমাও চেয়েছেন সাকিব।

স্টাম্পে লাথি মেরে সাকিব কি সেই বাস্তবতার দেয়ালেই আঘাত করতে চাইলেন? সেটি হলে একটা ভয়ও আছে। সাকিবের লাথিটা ফুটবলের ‘কিকঅফে’র মতো না হয়ে যায়!

বিশেষ কিছু ক্লাবকে অন্যায় সুবিধা দিতে গিয়ে কিছু আম্পায়ার যেভাবে ম্যাচের পর ম্যাচ অন্য ক্লাবের খেলোয়াড়দের সাফল্যবঞ্চিত করে চলেছেন, বিশ্ব তারকা সাকিবকে দেখে এবার সেই খেলোয়াড়েরাও যদি তাঁর মতো প্রতিবাদী হতে শুরু করেন! মাঠের আইন তুলে নিতে থাকেন নিজেদের হাতে, পায়ে কিংবা অন্য কোনোভাবে!

সাকিবের লাথি বড় এক অশনিসংকেতেরই বোধ হয় ডাক দিল বাংলাদেশের ক্রিকেটে। তবে সাকিব অন্যায় করেছেন, এটা যেমন ঠিক, তাঁর শাস্তি পাওয়াটা যেমন উচিত; একইভাবে এ কথাও বলতে দ্বিধা নেই—নোংরা ক্লাবরাজনীতিতে কলুষিত বাংলাদেশের ঘরোয়া ক্রিকেটের জন্য এ রকম একটা লাথি বড় দরকার ছিল।


সংবাদটি শেয়ার করুন:
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Archive Calendar

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০  

আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও সংবাদ

Archive Calendar

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০  

ফেসবুকে আমরা

মুজিব শতবর্ষ

সুরক্ষা অনলাই পোটার্ল

বাংলা পত্রিকাসমূহ

ইতিহাসের এই দিনে

বাংলাদেশের ৩৫০ ‍জন এমপিদের তালিকা

বিজ্ঞাপন

Web Deveoped By IT DOMAIN HOST